সিলেটে কালোবাজারিদের গুদামভর্তি সয়াবিন তেল, কঠোর অভিযান

soyabin.jpg

সম্প্রতি সিলেটে সয়াবিন তেলের কৃত্রিম সংকট তৈরি করার অভিযোগ ওঠে অসাধু কিছু পাইকারি বিক্রেতা ও ডিলারের বিরুদ্ধে। ই অভিযানে নামে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়। অভিযানে সে খবরের সত্যতা পায় ভোক্তা অধিকার। পরে তেলের কৃত্রিম সংকট তৈরিকারী পাইকারি বিক্রেতা ও ডিলারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভোক্তা অধিকারের এমন অভিযান অব্যাহত রয়ছে।

জানা যায়, সম্প্রতি ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ ইস্যুকে সামনে এনে সিলেটে দাম বাড়ানো হয়েছে সয়াবিন তেলের। গত প্রায় দুই সপ্তাহ সময় ধরে চলছে এমন অবস্থা। অথচ সিলেটের ডিলার পয়েন্টে তেলের কোনো সংকট নেই বলে জানান মোদি দোকানি ও সয়াবিনের খুচরো বিক্রেতারা।

খুচরো ব্যবসায়ীদের অভিযোগের ভিত্তিতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেটে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করে রেখেছে তেল কোম্পানিগুলোর কতিপয় ডিলার ও পাইকারি বিক্রেতা। অধিক লাভে তেল বিক্রির জন্য এমনটি করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে কয়েকদিন টাকা দিয়েও সয়াবিন পাওয়া যায়নি ডিলার পয়েন্টে। বড় বড় দোকানগুলোতে সামান্য পরিমাণে তেল সরবরাহ করা হয়। ১০ কাটনের অর্ডার করলে দেওয়া হতো ৫ কাটন

মোদি দোকানদাররা আরও অভিযোগ করেন, চলতি সপ্তাহের শুরু থেকে অর্ডার করার পর সয়াবিন দিলেও এর সঙ্গে অন্যান্য পণ্য নেওয়ার শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়। ৫ কাটন সয়াবিনের সঙ্গে নিতে হয় ৫ বেগ আটা-ময়দাসহ অন্যান্য পণ্য। চাহিদা না থাকলেও জোর করে দিয়ে দিচ্ছে তারা। অন্যতায় সয়াবিন তেল দিচ্ছে না। এছাড়াও সয়াবিন তেলের দাম নিচ্ছে বাড়তি। ৫ লিটারের বডি রেট ৭৯০ টাকা। নিয়ম হচ্ছে- ডিলার পয়েন্টে ৭৬০ টাকা রাখবে, কিন্তু রাখা হচ্ছে বডি রেট। এছাড়াও টেম্পারিং করে বাড়ানো হয় বোতলের গায়ের দাম।

 বিষয়টি নজরে পড়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় ও জেলা কার্যালয় কর্মকর্তাদের এবং তারা দ্রুত অভিযানে নামেন।

অভিযানের ধারাবাহিকতায় সোমবার (৭ মার্চ) সিলেট নগরীর কালিঘাট এলাকার বিভিন্ন ডিলার পয়েন্ট ও পাইকারি বিক্রেতাদের গুদামে অভিযান চালান ভোক্তা অধিকার পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদলত। অভিযানকালে দোকানে সয়াবিন তেল সংকট দেখিয়ে গুদাম ভর্তি করে রাখার প্রমাণ পাওয়া যায়। এমন অপরাধের দায়ে কালিঘাটে একাধিক প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেন আদালত।

এছাড়াও বোতলের গায়ের আসল দামের উপর টেম্পারিং করে বাড়তি দাম লিখে বিক্রি করার দায়েও কয়েকজন পাইকারি বিক্রেতা এবং ডিলারকে জরিমানা করা হয়।

এদিকে, সিলেটে বাজার তদারকিমূলক এমন অভিযান আজও (মঙ্গলবার) চালায় ভোক্তা অধিকার। দিনব্যাপী পরিচালিত পৃৃথক অভিযানে বিভিন্ন স্থানে দোকানগুলোতে মূল্য তালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন না করা, মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য সংরক্ষণ, নির্ধারিত মূল্যের অধিক মূল্যে ভোজ্যতেল বিক্রয় এবং টেম্পারিং করার অপরাধে মোট ২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার গোবিন্দ বাজারে ৩ প্রতিষ্ঠানকে ২৮ হাজার, হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার চৌধুরী বাজারে ৩ প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ১৫ হাজার ও মৌলভীবাজার জেলাসদরে ৫টি প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ৩৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযানে সহায়তা করেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য, কনজুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব), কৃষি বিপণন কর্মকর্তা এবং বাজার কমিটির সদস্যবৃন্দ। জনস্বার্থে এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানায় ভোক্তা অধিকার।

অভিযানকালে ব্যবসায়ীদের ভোক্তা-স্বার্থ সংরক্ষণ ও আইনকানুন মেনে ব্যবসা পরিচালনার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয় এবং জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ভোক্তা ‍ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রচারণামূলক লিফলেট-পাম্পলেট বিতরণ ও মাইকিং করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top

প্রধান সম্পাদক: নজরুল ইসলাম শিপার
সম্পাদক:কামরুল হাসান জুলহাস

বক্স ম্যানশন, ৩য় তলা, বন্দর বাজার, সিলেট-৩১০০।
০১৭২০-৪৪৫৯০৮
news.talashbarta@gmail.com