সবাই পাবে বিনা মূল্যে টিকা

119867.jpeg

দেশের সব নাগরিককে বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস-প্রতিরোধী টিকা দিতে চায় সরকার। এর অংশ হিসেবে প্রয়োজনীয় ডোজ কিনতে বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখা হয়েছে। পাশাপাশি চিকিৎসা খাতের অন্যান্য সংকট মোকাবিলায় প্রস্তাবিত বাজেটে চলতি অর্থবছরের তুলনায় বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে ১১ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরের (২০২০-২১) চেয়ে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বরাদ্দ ৩ হাজার ৪৮৬ কোটি টাকা বাড়িয়ে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ২৯ হাজার ২৪৫ কোটি টাকা।

চিকিৎসা নিতে বিদেশমুখিতা কমাতে দেশে সরকারি হাসপাতাল অত্যাধুনিক করে নতুন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগসহ টিকা কেনার জন্য থাকছে আলাদা বরাদ্দ। চলতি অর্থবছরে ১০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ বরাদ্দ হয়েছিল, যা প্রস্তাবিত বাজেটেও রয়েছে।

অর্থনীতি বিশ্লেষকরা বলছেন, করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যকে ঢেলে সাজানোর এখনই উপযুক্ত সময়। প্রস্তাবিত বাজেটে যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তার গুণগত ব্যয় নিশ্চিত না করতে পারলে স্বাস্থ্য খাতের দৈন্যদশা কাটবে না।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, স্বাস্থ্য খাতে বাজেটে যে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে, তার চূড়ান্ত সুফল পাচ্ছে না জনগণ।

তাদের প্রত্যাশা, প্রস্তাবিত বাজেটে বরাদ্দকৃত অর্থ জনগণের সেবা নিশ্চিতে ব্যয় করতে পারলে স্বাস্থ্য খাতকে অনেক এগিয়ে নেয়া সম্ভব।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক সৈয়দ আবদুল হামিদ বলেন, ‘স্বাস্থ্য খাতে যে বাজেট দেয়া হয় সেই বাজেট যদি গুণগত বা সঠিকভাবে খরচ করতে পারতাম, স্বাস্থ্য খাতে অনেক উন্নয়ন করা সম্ভব হতো। এখানে যে খরচটা হচ্ছে সেটা রেভিনিউ বা উন্নয়ন বাজেটে ব্যয় থেকে জনগণ সুফল পাচ্ছে। স্বাস্থ্য খাতে উন্নয়নের জন্য গুণগত বাজেটে গুরুত্ব দিতে হবে।

‘প্রতিবছর বাজেটে বরাদ্দ বাড়ানো হয়। এর বড় একটা অংশ কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতনে চলে যায়। কারণ প্রতিবছর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ৫ শতাংশ করে বাড়ানো হয়। তাই আমাদের জোর মনোযোগ থাকতে হবে, যে বাজেট দেয়া হচ্ছে, এটার গুণগত ব্যয় নিশ্চিত করা।’

তিনি বলেন, ‘গুণগত ব্যয় হলো বাজেটের অর্থ দুইভাবে ব্যয় হয়। একটি পরিচালনা। অন্যটি উন্নয়ন ব্যয়। পরিচালনা ব্যয় মূলত বেতন-ভাতা, ওষুধসহ চিকিৎসাসামগ্রী ক্রয়ে ব্যয় হচ্ছে। তবে বেতন নেয়ার পর যদি সঠিকভাবে কাজ না করে তাহলে তাদের পেছনে ব্যয় গুণগত ব্যয় হবে না। যেমন: হাসপাতালে রোগী সেবা দেয়ার জন্য চিকিৎসককে বেতন দেয়া হয়।

‘যদি চিকিৎসক হাসপাতালে না যেয়ে বেতন নেন তাদের পিছনে বাজেটের ব্যয় গুণগত ব্যয় হবে না। স্বাস্থ্য খাত উন্নয়নের এই বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।’

মহামারির বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে অর্থনীতির ক্ষত সারানোর পাশাপাশি মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষার চ্যালেঞ্জ সামনে নিয়ে নতুন অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত এই ব্যয় বিদায়ী ২০২০-২১ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের চেয়ে ১২ শতাংশ বেশি। আর মূল বাজেটের চেয়ে ৬ দশমিক ২৮ শতাংশ বেশি।

বিদায়ী অর্থবছরে মুস্তফা কামালের দেয়া মূল বাজেটের আকার ছিল ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৫ লাখ ৩৮ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়েছে।

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। তার আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর ওই প্রস্তাবে সই করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top

প্রধান সম্পাদক: নজরুল ইসলাম শিপার
সম্পাদক:কামরুল হাসান জুলহাস

বক্স ম্যানশন, ৩য় তলা, বন্দর বাজার, সিলেট-৩১০০।
০১৭২০-৪৪৫৯০৮
news.talashbarta@gmail.com