সিলেটে পুলিশের সামনেই ট্রাকে যাত্রী বহন

police-bg20200411023253.jpg

দেশে করোনার সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করায় আজ সোমবার (২৮ জুন) থেকে তিন দিন সীমিত ও আগামী বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) থেকে সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

এই সময়ে রিকশা ও পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া সব ধরণের যাত্রীবাহী গাড়ি বন্ধ থাকার নির্দেশনা থাকলেও সোমবার ভোর থেকেই সিলেটজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে সিএনজি অটোরিকশা। পাশাপাশি সিলেটে ভাড়ায় যাত্রী বহন করছে ট্রাক, পিকআপ, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস। সিলেট শহর থেকে দূরে যেতে যাত্রীরা এসব গাড়ি ব্যবহার করছেন। সোমবার দুপুরে দক্ষিণ সুরমার চন্ডিপুল ও হুমায়ুন রশীদ চত্বরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

এদিকে, পুলিশের সামনে এমন সব কাণ্ড ঘটলেও পুলিশকে নিরব দর্শকের ভূমিকায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

গতকাল রোববার সরকারের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী- লকডাউন চলাকালীন সারাদেশে পণ্যবাহী যানবাহন ও রিকশা ব্যাতীত সকল গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিয়মিত টহলের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

কিন্তু সিলেটে সোমবার সকাল থেকেই দেদারসে চলছে সিএনজি অটোরিকশা। সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কে দু-একটি বাসগাড়িও চলতে দেখা গেছে।

অপরদিকে, দক্ষিণ সুরমার চন্ডিপুল ও হুমায়ুন রশিদ চত্বরসহ নগরীর বিভিন্ন স্থানে সিএনজি অটোরিকশার পাশাপাশি ট্রাক, পিকআপ, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস গাড়ি ভাড়ায় দূরপাল্লার যাত্রী পরিবহন করছে। এসব স্থানে পুলিশ ও পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সদস্যরা উপস্থিত থাকলেও বিষয়টি তারা দেখেও না দেখার ভান করছেন।

এর ফলে যেমন উপেক্ষিত হচ্ছে সরকারি নির্দেশনা, তেমনি রয়েছে করোনার সংক্রমণ আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা।

এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিট পুলিশের (এসএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) বলেন, লকডাউনকালীন নীতিমালা বাস্তবায়নে সোমবার ভোর থেকে সিলেট মহানগরীর ৬ থানাধীন এলাকাগুলোতে অন্তত ২০টি টিম অবিরাম কাজ করছে। তবে সিলেটভিউসহ অন্যান্য গণমাধ্যম সূত্রে কিছু সিএনজি অটোরিকশা চলাচল এবং অন্যান্য গাড়িতে যাত্রী পরিবহনের বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top

প্রধান সম্পাদক: নজরুল ইসলাম শিপার
সম্পাদক:কামরুল হাসান জুলহাস

বক্স ম্যানশন, ৩য় তলা, বন্দর বাজার, সিলেট-৩১০০।
০১৭২০-৪৪৫৯০৮
news.talashbarta@gmail.com